State Times Bangladesh

জ্ঞান কখনো পাবলিক-প্রাইভেটে সীমাবদ্ধ থাকে না

প্রকাশিত: ১৩:২৯, ১ এপ্রিল ২০২১

জ্ঞান কখনো পাবলিক-প্রাইভেটে সীমাবদ্ধ থাকে না

আমেরিকার সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে এমআইটি, হার্ভাড, প্রিন্সিটন, ইউপ্যান, স্ট্যানফোর্ড, ক্যালট্যাক, কলোম্বিয়া, ইয়েল এগুলো অগ্রগণ্য। বিশ্ব র‍্যাঙ্কিয়ে এই প্রতিষ্ঠানগুলো সবসময় প্রথম ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে জায়গা করে নেয়। আপনি কি জানেন, এগুলো সবই প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়! তবে এই প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অবকাঠামো ও গবেষণার মান জগৎ সেরা। শুধু মুনাফাভিত্তিক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান নয়।

শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে টিকে থাকার জন্য এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের কী পরিমাণ পরিশ্রম করতে হয়, কী পরিমাণ ইনোভেটিভ হতে হয়, সেটা বাংলাদেশে বসে কল্পনা করাও কঠিন। এ কারণেই এসব বিশ্ববিদ‍্যালয়ের একজন শিক্ষক কিংবা ভিসি তাদের প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে কথা বলতে পারেন। প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে মামলা করতে পারে। কারণ এখানে জ্ঞানের চর্চা হয়। যে জ্ঞানের সংজ্ঞাটাই আমাদের সমাজে আমরা বুনতে পারিনি আজো। আমাদের জ্ঞান দুর্ভাগ‍্যবশত ডিগ্রি, সনদ, চাকরি ও চামচামির মধ‍্যেই আর্বতিত!  

এক যুগ আগেও বাংলাদেশে প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির মান নিয়ে অনেক কথা ছিলে। কিন্তু দেশের অনেক প্রাইভেট ইউনিভার্সিটি সেটার জবাব দিয়েছে। নির্দ্বিধায় বলা যায়, দেশের অনেক পাবলিক ইউনিভার্সিটির চেয়ে অনেক প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির শিক্ষার মান এখন বিশ্বমানের।

দেশে খারাপ মানের পাবলিক ইউনিভার্সিটি যেমন আছে, তেমনি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিও আছে। সুতরাং ঢালাওভাবে প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিকে নিয়ন্ত্রণ করা অনৈতিক।

ব্র্যাক বিশ্ববিদ‍্যালয়ে বিশ্বমানের শিক্ষক আছেন। তাদের প্রশাসনিক কাঠামো আধুনিক। তারা যে মানের অভিজ্ঞ, মেধাবী একজন ভিসি নিয়োগ দিয়েছে, দেশের কয়টা পাবলিক বিশ্ববিদ‍্যালয়ে এমন একজন ভিসি আছে? 

এক যুগ আগেও শুনতাম, নর্থসাউথ ইউনিভার্সিটিতে নর্থ এমেরিকান ডিগ্রি ছাড়া শিক্ষকতা করা যায় না। অথচ, ২০২১ সালে এসেও পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে স্নাতক/স্নতকোত্তর করে শিক্ষক হওয়া যায়। অনেক ছেলেমেয়ে বিদেশ থেকে উচ্চতর ডিগ্রি নিয়ে দেশে ফিরে পাবলিক ইউনিভার্সিটিতে চাকরি পায় না। লাঞ্ছনা-বঞ্চনার শিকার হয়। তারা যদি প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতে চাকরি করে, তাহলে কী তাদের মেধা হারিয়ে গেল? তারা কী সে মেধার চর্চা প্রাইভেট ইউনিভার্সিটির স্টুডেন্টদেরকে নিয়ে করতে পারবে না?

প্রাইভেট ইউনিভার্সিটিতেও যদি ভালো মানের পড়াশোনা হয়, পিএইচডি ডিগ্রি দেওয়ার মতো শিক্ষক থাকে, তাহলে সেখানেও এই সুযোগ দেওয়া উচিত। যদি সেখানে প্রফেসর এমিরেটাস হওয়ার মতো লোক থাকে, তাহলে কেন হবে না? জ্ঞান কখনো পাবলিক-প্রাইভেট আবর্তে সীমাবদ্ধ থাকে না। সীমাবদ্ধ করা উচিত না। তাহলে সমাজে জঞ্জাল তৈরি হয়।

ড. রউফুল আলম : সিনিয়র সাইন্টিস্ট, পিটিসি থেরাপিউটিকস, নিউজার্সি, যুক্তরাষ্ট্র