State Times Bangladesh

স্বাধীন ফিলিস্তিন

তাবাস্সুম আল–রশীদ

প্রকাশিত: ২০:৩১, ১৩ জুন ২০২১

স্বাধীন ফিলিস্তিন

খোদা তা’আলার অপরূপ সৃষ্টি

নীলের বক্ষে ধরে,

ভূ–সাগরের ভূখণ্ডটি রয়েছে হেথা

মাথা উঁচিয়ে দাঁড়ায়ে।

কেবল মাটি নয়কো; এ-যে স্বর্ণ

হীরক খচিত ধরা,

স্বয়ং আল্লাহ্র দেয়া এ সম্ভ্রমে

বিমোহিত গগণের চন্দ্র-সূর্য-তারা।

 

দোজাহানের মালিককে মাখলুককূল

প্রথম করতে প্রণাম,

এই জমিনের পরে ফিরিয়েছিল মুখ

পেয়েছিল আসমানী কালাম।

কত রাসূল–নবী এসে এ মেদিনী

করলেন আল্লাহ্–প্রেমে পবিত্র,

হাজার ঘটনার সাক্ষী ইয়ারু–শলম

যেন তাবুতে সাকীনা আবদ্ধ।

রাসূলেরা মিললেন যে মহান স্থানে

বাইতুল মুকাদ্দাস,

সালাত পড়তে সেথা মুসলিম হৃদে

অন্তহীন জাগে আশ।

কেউ কি ভেবেছে এমন ভূমিও

রক্তে হবে লাল,

আল্লাহ্র দেয়া আবাস রক্ষায়

সংগ্রাম নিত্যকাল?

 

নিপীড়িত–নিঃস্ব যারা এসেছিল এ দেশে

নিয়ে মাথা গোঁজার আকুতি,

ঠাঁই দিয়েছিলাম তাদের বুকে মোরা

হয়ে মানবতা-ব্রতী।

এই যাদের বন্ধু ভেবে মোরা

দিয়েছি আবাস–স্থান,

বধ করেছে তারা মাসুম শিশুদের আর

করেছে নারীদের অসম্মান।

তাইতো দ্বন্দ্ব–শুধু কেন জালিমের আস্ফালন,

এমন পূত মাটিতে মুসলিমের

কেন আসে না বিজয়–ক্ষণ?

বিজয় আসবেই–চাই শুধু খাঁটি

ইমানের মজবুতি,

যেন জান দেবো তবু হতে দেবো না

আল–আকসা

কাফির চালের ঘুঁটি।

 

ইয়াসির আরাফাত, মেশাল হানিয়া

সত্যের সৈনিক, ইন্তিফাদার বীর,

হোক গাজী কি বা শহীদ সকল

দৃপ্ত চিত্ত–শির।

সাবের আশকার, ফারিস, তামিমি

আরো বহু আজাদী প্রাণ,

দেখিয়েছে মোদের লড়ার রাস্তা

যেমন বলেছে আল–কুরআন।

 

ওহে হানাদার! ওহে দখলদার!

সময় এসেছে মাথা নোয়াবার!

জেনে রেখ গুলি মিসাইলের কাছে

কিছু হারাবার নেই আর!

আমরা শক্ত, কুসুম হৃদয় আর বন্ধুবৎসল,

তবে বাতিলের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই

পাহাড় সম অটল।

বেশী নয়, শুধুই মোদের ন্যায্য

অধিকার ফিরে চাই,

তোমরাও থাকো, আমরাও থাকি

করে কোলাকুলি ভাই–ভাই।

হত্যা করে কী লাভ বলো যদি

ময়দানে রোজ হাশর,

দিতেই না পারো খোদার তরে

এই ত্রাসের উত্তর।

তাই এসো–ভুলি কোন্দল, ঘৃণা,

উন্মক্ত ক্রোধ, বিরাগ ;

আলাপে বুঝে নিই ন্যায়সঙ্গত

পন আপন ভাগ।

 

সেদিন তো দূরে নয়-তূরের নূরে

যেদিন কেটে যাবে আঁধার,

কালিমা–খচিত পতাকা হাতেই

আসবে তাওহীদি রাহবার।

সেই দিবসের প্রতীক্ষায় শুধু

গুজরান করি দিন,

 

হবেই হবে! আলবৎ হবে

স্বাধীন ফিলিস্তিন।