State Times Bangladesh

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

নিয়োগের ‘বৈধতা’ পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ২১:৫৫, ২৬ জুন ২০২১

নিয়োগের ‘বৈধতা’ পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা

সংবাদ সম্মেলনে নিয়োগপ্রাপ্তদের একাংশ

শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে ঘোষিত ‘অবৈধ’ উপায়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) নিয়োগপ্রাপ্তরা ‘বৈধতা’ নিয়ে দ্রুত কর্মস্থলে যোগদানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

আজ শনিবার বেলা ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এই আহ্বান জানান সাবেক উপাচার্য আব্দুস সোবহান কর্তৃক নিয়োগপ্রাপ্তদের একাংশ।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নিয়োগপ্রাপ্তরা বলেন, 'রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজের গতিশীলতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে গত ৫ মে সদ্য বিদায়ী উপাচার্য অধ্যাপক এম. আব্দুস সোবহান ৭৩'র অধ্যাদেশ ১২ (৫) অনুযায়ী তার উপর অর্পিত ক্ষমতা বলে শূন্যপদের বিপরীতে ১৩৮ জন জনবল নিয়োগ দেন।

যথাযথ কতৃপক্ষ কর্তৃক আমরা নিয়োগ পত্র হাতে পাওয়ার পর গত ৬ মে নিজ নিজ দপ্তরে যোগদান করি। পরিতাপের বিষয় সাবেক উপাচার্যের মেয়াদ শেষ হলে রুটিন দায়িত্বপ্রাপ্ত উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা আমাদের যোগদানকে ‘অবৈধ’ ঘোষণা বলে আখ্যা দেওয়ার চেষ্টা করে নানা অজুহাতে আমাদের কর্মস্থলে যোগদান থেকে বিরত রেখেছেন। ৭৩'র অধ্যাদেশ মতে রুটিন উপাচার্য এধরণের সিদ্ধান্ত দিতে পারেন না।'

নিয়োগপ্রাপ্তরা বলেন, 'আমরা হতবাক হয়েছি রুটিন উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা গত ২৪ জুন শিক্ষা মন্ত্রণালয় বরাবর নিয়োগ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন পাঠিয়েছেন যা আমাদের নজরে এসেছে। প্রতিবেদনটি মিথ্যার আলোকে সাজানো এবং ৭৩'র এ্যাক্টের ভুল ব্যাখ্যায় ভরপুর। এধরণের ভুল ব্যাখ্যায় ভরা প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়কে দেওয়া ষড়যন্ত্রের একটি অংশ। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ এবং উক্ত প্রতিবেদন প্রত্যাহারের দাবি জানাই।'

নিয়োগপ্রাপ্তরা আরও বলেন, 'বর্তমান রুটিন উপাচার্য কর্তৃক মন্ত্রণালয়ে প্রেরিত ভুল ব্যাখ্যার প্রতিবেদন এবং তার অবিরাম মিথ্যাচারে এটা প্রতীয়মান যে, তিনি যেকোন উপায়ে এই নিয়োগ বাধাগ্রস্থ করতে চান। আমরা মনে করি তিনি জেনে ও বুঝে এবং তাদের অভ্যন্তরীণ দলাদলিতে আমাদেরকে বলির পাঁঠা হিসেবে ব্যবহার করছেন। আমরা আহ্বান জানাই, মিথ্যার ফুলঝুড়ি বাদ দিয়ে সত্যকে উপস্থাপন করে ৭৩'র অধ্যাদেশ মূলে আমাদের বৈধ নিয়োগকে স্বাগত জানিয়ে কর্মস্থলে যোগদান করার সুযোগ দিন, অন্যথায় আমাদের লাগাতার আন্দোলন থেকে বিচ্যুত হবো না।'

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করে নিয়োগপ্রাপ্তরা বলেন, 'নিয়োগ সংক্রান্ত সমস্যা নিরসনে এবং আমাদের দ্রুত পদায়নের দাবিটি স্বার্থকভাবে সমাধানের জন্য জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমানের তনয়া, মানবতার মা, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি দেশরত্ন শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।'

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে নিয়োগপ্রাপ্ত ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য ও রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি আতিকুর রহমান সুমন, রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ওমর ফারুক ফারদিন, রাজশাহী মহানগর যুবলীগের গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক একেএম আরকান উদ্দিন বাপ্পি, রাবি ছাত্রলীগের সাবেক সহসভাপতি ফিরোজ মাহমুদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।